ক্যাম্পাস খোলাসহ ৪ দাবিতে ইবিতে গণস্বাক্ষর

  • 31 May
  • 06:10 PM

আজাহার ইসলাম, ইবি প্রতিনিধি 31 May, 21

আগামী এক জুন হল ও ক্যাম্পাস খুলে শিক্ষাকার্যক্রম স্বাভাবিক করাসহ ৪ দফা দাবিতে সশরীরে ও অনলাইনে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সোমবার (৩১ মে) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে এ কর্মসূচি পালন করে তারা।

গণস্বাক্ষরে সশরীরে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। এছাড়া শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অনলাইনে ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। সপ্তাহব্যাপী এ স্বাক্ষর চলমান থাকবে বলে জানায় আন্দোলনকারীরা।

এদিকে দুপুর ১২ টার দিকে একই দাবিতে ছাত্র সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা। সমাবেশে দাবি আদায় না হলে কঠোরতর আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেন তারা।

আন্দোলনকারীরা বলেন, ‘সব চলছে, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ কেন? অনার্স-মাস্টার্স পডুয়া শিক্ষার্থীরা দেশের সচেতন নাগরিক। আমরা আমাদের স্বাস্থ্য নিয়ে যথেষ্ট সচেতন। বিশ্ববিদ্যালয় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় আমরা মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তানেরা চরম হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছি। আমাদের স্বপ্ন তিলে তিলে ধ্বংশের পথে। শিক্ষাজীবন শেষে আমাদের পরিবারের হাল ধরার দায় থাকে। পরিবার আমাদের দিকে চেয়ে আছে। অতি দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিয়ে আমাদের স্বপ্ন, আমাদের বাবা মায়ের স্বপ্ন পূরণ করতে দিন।’

এসময় পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী শাহাদাত হোসেন রাজীন, জেরিন, ইতিহাস বিভাগের মোস্তাফিজুর রহমান, বাংলা বিভাগের শ্যামলী তানজিন অনু, ল’ এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের হুমায়রা আন্জুম অন্তু, মুনতাহিনা মুমমুন উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া আলামিন ইসলাম, নির্মল, তানজিরসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। 

শিক্ষার্থীদের দাবি, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে আগামী ১ জুন সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা, স্থগিত ও আটকে থাকার পরীক্ষাগুলো গ্রহণ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তত্ত্বাবধানে শিক্ষার্থীদের দ্রুত ভ্যাকসিন নিশ্চিত করণ এবং করোনাকালে শিক্ষার যে ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে নিতে জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ নিশ্চিত করণ।

এর আগে একই দাবিতে গত ২৪ মে মানববন্ধন করে শিক্ষার্থীরা। পরে গত ২৭ মে গলায় দড়ি দিয়ে প্রতিকী ফাঁস নিয়ে বিক্ষোভ করে তারা। এছাড়াও সেদিন বিক্ষোভ মিছিল, ভিসি বাসভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি ও সমাবেশ করে আন্দোলনকারীরা। পরে গত ২৯ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে  শিক্ষার্থীরা।