হাবিপ্রবির আইআরটির নতুন পরিচালক অধ্যাপক হারুন-উর-রশীদ

  • 07 Sept
  • 03:50 PM

আব্দুল্লাহ আল মুবাশ্বির, হাবিপ্রবি প্রতিনিধি 07 Sept, 21

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিংয়ের (আইআরটি) নতুন পরিচালক নিযুক্ত হয়েছেন প্যাথলজি অ্যান্ড প্যারাসাইটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. এস এম হারুন-উর-রশীদ।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম কামরুজ্জামানের অনুমতিক্রমে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. মো. ফজলুল হক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বিষয়টি জানানো হয়।

অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়, 'বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি অ্যান্ড প্যারাসাইটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. এস এম হারুন-উর-রশীদকে তার নিজ দ্বায়িত্বের অতিরিক্ত দ্বায়িত্ব হিসেবে (শর্তসাপেক্ষে) ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিংয়ের (আইআরটি) নতুন পরিচালক (আইআরটি) নিযুক্ত করা হয়েছে'।

দায়িত্ব পাবার পর অধ্যাপক হারুন-উর-রশীদ বলেন, 'বিশ্ববিদ্যালয় মানেই সেখানে শিক্ষার পাশাপাশি গবেষণা চলবে এটাই প্রত্যাশিত। এজন্য আমাদের মধ্যমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী গবেষণার দিকে মনযোগ দিতে হবে। মাননীয় উপাচার্য মহোদয় উনি নিজেও একজন গবেষণা অনুগামী মানুষ। তিনি যেহেতু আমাকে আরআরটির পরিচালক পদে নিযুক্ত করেছেন, সেজন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞতার পাশাপাশি আমি বলতে চাই বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা খাতকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাবো'।

গবেষণা প্রস্তাবনা জালিয়াতির ক্ষেত্রে আইআরটির ভূমিকা কি হবে জানতে চাইলে অধ্যাপক হারুন-উর-রশীদ বলেন, 'যদি কারো বিরুদ্ধে গবেষণা প্রস্তাবনা জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া যায়, তাহলে অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, এখানে দুর্নীতির কোন আশ্রয়-প্রশয় দেওয়া হবে না। উপাচার্য স্যার উনিও কিছুদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন। তিনিও চাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা খাত একটু সমৃদ্ধ হোক'।

উল্লেখ্য, অধ্যাপক হারুন-উর-রশীদ শিক্ষাজীবনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ থেকে কৃতিত্বের সাথে অনার্স (২য় বিভাগ) ও মাষ্টার্স (১ম বিভাগ) শেষ করেন এবং ইনষ্টিটিউট অব বায়োলজিক্যাল সায়েন্স, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন।

পরবর্তীতে কর্মজীবনের শুরতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথোলোজি বিভাগে রিসার্চ ফেলো হিসাবে যোগ দেন, তারপর ২০০৪ সালে দিনাজপুর ভেটেরিনারী কলেজে সহকারী অধ্যাপক হিসাবে যোগ দেন এবং তারপর ২০০৮ সালে একই কলেজে সহযোগী অধ্যাপকে উন্নতি হন।

এরপর ২০১০ সালে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারী এন্ড এ্যানিমেল সায়েন্স অনুষদের প্যাথলজি এন্ড প্যারাসাইট বিভাবে সহকারী অধ্যাপক হিসাবে যোগ দেন পরবর্তী ২০১২ সালে সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপকে উন্নতি হন।

এছাড়াও তিনি নিজ বিভাগের চেয়ারম্যান, একাডেমিক কাউন্সিরের সদস্য, ২০০৮ সালে তাজ উদ্দীন আহমেদ হলের হল সুপার, ২০০৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, ২০১১ সালে হিসাব শাখার পরিচালক ও ২০১৭ সালে ছাত্রপরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন।

এ পর্যন্ত তার ৪০ টিরও বেশি গবেষণা প্রবন্ধ দেশি বিদেশী জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও তার তত্ত্বাবধানে দেশি বিদেশী ৪৬ জন শিক্ষার্থী মাষ্টার্স শেষ করেছে এবং বর্তমানে ১০ জন শিক্ষার্থী মাষ্টার্স ও ১ জন পিএইচডি ডিগ্রী গ্রহণ করছে।