‘যেকোনো পরিস্তিতি মোকাবেলা করতে প্রস্তুত আমরা’

  • 25 Sept
  • 08:19 AM

আতিকুর রহমান, বাকৃবি প্রতিনিধি 25 Sept, 21

"করোনা পরিস্থিতির এই সময়ে সশরীরে পরীক্ষা নেওয়া ও শিক্ষার্থীদের হলে উঠনোর বিষয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত আমরা। জরুরী অবস্থা বা যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ কেয়ার সেন্টারে প্রস্তুত রয়েছে ৩ টি অ্যাম্বুলেন্স, ২ টি আইসোলেশন রুম এবং কেনা হয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন সিলিন্ডার। এবং যারা টিকা গ্রহণ করেছে তাদেরই কেবল হলে উঠানোর চেষ্টা চলছে। শিক্ষার্থীরা যেনো সবসময় মাস্ক ব্যবহার করে এবং ক্যাম্পাসে যেনো জনসমাগম না হয় সে বিষয়েও আমরা সতর্ক আছি।"

দেড় বছর বন্ধের পর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) সব হল খুলে দেওয়ার প্রস্তুতি বিষয়ে এ কথা বলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. এ. কে. এম জাকির হোসেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো শুধুমাত্র ৪র্থ বর্ষ এবং মাস্টার্সের শিক্ষার্থদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। অন্য সকল বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্যে ৩ অক্টোবর খুলে দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় টিকা গ্রহণ করতে পারেনি আমরা তাদের তথ্য সংগ্রহ করেছি এবং বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে ইউজিসি ও নির্বাচন কমিশনে পঠানো হয়েছে। খুব দ্রæত তারা টিকার আবেদন করতে পারবে। শিক্ষার্থীদের যেনো বাহিরে না যেতে হয় সেজন্য আমরা হলের ক্যান্টিন ও ডাইনিং চালু করারও ব্যবস্থা নিয়েছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ কেয়ারের চীফ মেডিকেল অফিসার ডা. মো. সাইদুর রহমান বলেন, হেলথ কেয়ারে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন এবং শিক্ষার্থীদের সাধারণ ও বায়োকেমিকাল টেস্ট করানোর ইকুইপমেন্টের পশিাপাশি ৩টি এম্বুলেন্স প্রস্তুত আছে। এবং চার বেড বিশিষ্ট দুটি আইসোলেশন রুম মোটামুটি প্রস্তুত আছে। বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগেই আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে যাবো।

উল্লেখ্য, ৩য় থেকে ১ম বর্ষ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ১৭ অক্টোবর। যেসব বর্ষের ব্যবহারিক ক্লাস এবং ক্লাস টেস্ট পরীক্ষা এখনো শেষ হয়নি তাদের আগামী ৪ থেকে ১০ অক্টোবরের মধ্যে সকল ক্লাস এবং ক্লাসটেস্ট পরীক্ষা শেষ করতে হবে। এবং ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৪র্থ বর্ষের ফাইনাল শুরু হবে।