পেশাজীবী এবং উদ্যোক্তাদের সংগঠন মিরপুর ক্লাব লিমিটেডের ‘ফরমেশন টিম-৩ অভিষেক’ অনুষ্ঠিত হয়েছে

  • 28 Aug
  • 05:30 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক 28 Aug, 21

শুক্রবার, ( ২৭ আগষ্ট ) সন্ধ্যা ৭ টায়  রাজধানীর জিনজিয়াং কাফেতে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট তৃতীয় ফরমেশন টিমের নাম ঘোষনা করে পরিচয় করিয়ে দেয়ার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত শুরু হয়।

ক্লাবের  প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম মাহাবুব আলম ১৯ সদস্য বিশিষ্ট তৃতীয় ফরমেশন টিমের নাম ঘোষনা করে পরিচয় করিয়ে দেন এবং সদস্যদের দায়িক্ত ও কাজের পরিধি নিয়ে আলোচনা করেন।

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের সকলে তাদের উপর অর্পিত দায়িক্ত পালনে অংগীকার ব্যক্ত করেন এবং সম্মিলিতভাবে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে ক্লাবটিকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তৃতীয় ফরমেশন টিমের সদস্যরা হলেন, ক্লাবের সম্মানিত প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম মাহাবুব আলম, স্বাস্হ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব জনাব সুশান্ত কুমার সাহা, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডন্ট জনাব মাহমুদুল হাসান, ডিজিসিস টেকনোলজি লিমিটেডের এমডি জনাব আবু মোহাম্মদ শোয়েব, বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় অতিরিক্ত সচিব ও হাইটেক পার্কের এমডি জনাব বিকর্ণ কুমার ঘোষ, বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব ও হাইটেক পার্কের এমডি হোসনে আরা বেগম, সাবেক ডাইরেক্টর জেনারেল এনজিও এ্যাফেয়ার্স ব্যুরো গ্রেড-১ সেক্রেটারী জনাব রাসাদুল ইসলাম, ইসলামী ব্যাংক লিঃ এর ডিএমডি জনাব তাহের আহমেদ চৌধুরী, স্বাস্হ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জনাব মুজিবুল হক, ইনট্রাকো ডিজাইন লিমিটেড এর ডাইরেক্টর জনাব মোর্শেদ কবীর, সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের সম্মানিত পরিচালক ড. দৌলোতুন্নাহার খানম, এসোসিয়েট প্রফেসর ন্যাশনাল ইনিষ্টিটিউট নিউরোসাইন্স এর ডা: সিরাজী সফিকুল ইসলাম, প্রাক্তন হেড সিএসই বুয়েট প্রফেসর ড. মোস্তফা আকবর, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার রুপালী ব্যাংক লিমিটেড এর আব্দুর রহমান খান, প্রিন্সিপাল অফিসার ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড এর মো: ইফতেখার রহমান, অতিরিক্ত কমিশনার কাস্টমস হাউস আইসিডি জনাব খন্দকার নাজমুল হক জুয়েল, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভারসিটির ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং অতিরিক্ত রেজিস্টার ড. শাহ্ আলম চৌধুরী, আতাহ্ গ্রুপের জিএম এবং হেড অফ মার্কেটিং ফারুকী নাদিম এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর জনাব মো: জায়েদ হাসান প্রমুখ।

মেধাবীদের জড়ো করে বুদ্ধি, নেটওয়ার্ক আর অভিজ্ঞতার সম্মিলন ঘটিয়ে বড় কিছু করা যেতে পারে মনে করেন বক্তারা। মিরপুর ক্লাবের যাত্রা শুরুই হয়েছে এই ধারনাকে কেন্দ্র করে।

সংগঠনে আছে বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তা, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, আইসিটি বিশেষজ্ঞ, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, প্রফেসর, কনসালটেন্ট, গ্রুপ অব কোম্পানিজের সিইও, ব্যাংকার, সিএফও, ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা, বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারী ও বেসরকারী কর্মকর্তা। এছাড়াও একটি উপদেষ্টা পরিষদ আছে যেখানে সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ রয়েছেন।

মিরপুর ক্লাব সামাজিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সুস্থ বিনোদন চর্চা, সাংস্কৃতিক চর্চা, খেলাধুলার আয়োজন এবং বিজ্ঞান চর্চা করছে। এছাড়াও ক্লাবের সদস্যদের জন্য বিভিন্ন কমিউনিটি সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে। মানবতার সেবায় করোনাকালীন সময়ে মিরপুর ক্লাবের “ফুড ব্যাগ প্রোগ্রাম” ছিল অনন্য উদ্দোগ যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। শুধু স্বল্পকালীন সহযোগিতাই নয়, তাদের জন্য নিয়মিত আয়ের ব্যবস্থাও করে দিচ্ছে মিরপুর ক্লাব।

সংগঠনটি টেকসই উন্নয়নের মডেল এবং নাগরিক শীর্ষক বিষয়গুলো নিয়ে সামাজিক উন্নয়ন মূলক কাজ করছে। সেই লক্ষ্যে তারা “উন্নয়ন ভাবনা” নামক প্রকল্পের আওতায় কিছু সামাজিক বিষয় নিয়ে কাজ করছে, যেমন ১। নাগরিক দায়বদ্ধতা, ২। শব্দ দূষণ, ৩। দৃষ্টি দূষণ, ৪। মানসিক উৎকর্ষতা, ৫। সামাজিক উন্নয়ন কেন্দ্রের উৎকর্ষতা সাধন, ৬। সামাজিক উন্নয়ন এবং গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন, ৭। “জ্ঞান ভিত্তিক” সমাজ নির্মাণ, এবং ৮। সর্বোপরি “সামাজিক উন্নয়ন”।