করোনায় ভুক্তভোগী অসংখ্য মানুষের অসহায়ত্বের নোঙরে কাঁধ বাড়ালো সন্ধানী চমেক ইউনিট

  • 12 May
  • 08:05 PM

ভার্সিটি ভয়েস ডেস্ক 12 May, 21

❝ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়;
পূর্ণিমা-চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি❞ সুকান্ত ভট্টাচার্যের ‘হে মহাজীবন’ কবিতার এ দুটি লাইন যেন প্রতিনিধিত্ব করছে,বাংলাদেশের খেটে খাওয়া মানুষের জীবনের বর্তমান দুর্দশার চিত্রকে।
করোনা প্রকোপে দেশের বহু মানুষ যখন হতাশায় ভুগছেন স্থবিরতার চিত্র সহ্য না করতে পেরে, তখন সব চেয়ে বেশি হাহাকার করছেন দেশের নিম্নবিত্ত আয়ের মানুষেরা। হয়তো যার পরিবারের খাবারের সন্ধান দিতো একটা তিন চাকার বাহন কিংবা যে দিনমজুর একদিন কাজে না গেলে তার পরিবার থাকে অভুক্ত, তার চোখ ছলছল করে অসহায়ত্বের জলে। তার কারণ-লকডাউন।তার কাছে আজ যেন করোনার চেয়ে ‘ক্ষুধা’ ভয়ংকর।

করোনাকালীন এই মহাদুর্যোগের সময়ে মানবতার স্বার্থে মানুষের দুঃখের অংশের খানিকটা ভাগীদার হতে, নিজ আদলে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ইউনিট এবং তার প্রত্যেকটি সদস্য। তারই ধারাবাহিকতায় সন্ধানী চমেক ইউনিট চট্টগ্রামে নিম্নবিত্ত পরিবারে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, শিশুদের মধ্যে ঈদ উপহার বিতরণ, গরীব পথচারী ও রিকশাচালকদের মধ্যে ইফতার বিতরণ সম্পন্ন করে।

সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ইউনিটের পক্ষ হতে ইরা বিদ্যানিকেতনের সহযোগিতায় ষোলশহর রেলস্টেশন এলাকার ৫০টি ছিন্নমূল পরিবারের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। নগরীর বাকলিয়া থানাধীন শান্তিনগর বগার বিল এলাকায় সাদাত বিন আবিউকাস মাদ্রাসা ও এতিমখানায় ৫০ জন শিশুর মাঝে ঈদ পোশাক বিতরণ করা হয়। চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া এলাকার ৩টি, রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ৩টি, আনোয়ারা উপজেলার ৩টি, ফটিকছড়ির ২টি, চন্দনাইশের বাগিচারহাটে ৪টি, পটিয়ার শোভনদন্ডীতে ৩টি এবং কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ১টি মোট ১৯টি নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়।চট্টগ্রাম মেডিকেল ও এর আশেপাশের এলাকাসমূহে রিক্সাচালক ও গরীব পথচারীদের মধ্যে ইফতার বিতরণ করা হয়। এছাড়াও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এর চিকিৎসকদের ঈদ কার্ডের মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

মহৎ এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে, ফোর এইচ গ্রুপ সহ সম্মানিত চিকিৎসক স্যার/ম্যাডাম, সন্ধানীর সম্মানিত আজীবন সদস্য, উপদেষ্টাবৃন্দসহ সকল দাতা এবং প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত সকলকে যারা আর্থিক সহায়তা কিংবা শারীরিক পরিশ্রম দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন, তাদের সকলের প্রতি সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ইউনিট চিরকৃতজ্ঞ।
মানবতার স্বার্থে সকলের এই অংশগ্রহণ প্রতিনিয়তই দূর করছে কারো দুর্দশাকে। আসুন আমরা সবাই এগিয়ে আসি, এসব মেহনতি মানুষের দুঃখের অংশীদার হতে, তাদেরকে আরেকটু ভাল রাখতে।