বাকৃবি শিক্ষার্থী ফারুকের পরিবারে হামলা

  • 12 May
  • 05:40 PM

আতিকুর রহমান, বাকৃবি প্রতিনিধি 12 May, 21

১০ বছরের ধরে চলছে পারিবারিক রেশারেশি। সেই রেশের জেরেই প্রতিপক্ষ হামলা চালায়। আহত হয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) শিক্ষার্থী মো. ফারুক হোসেনসহ তার পরিবার (মা এবং খালা )। মঙ্গলবার সকালে ফারুকের নিজ এলাকা গুরুদাসপুর উপজেলায় ঘটনাটি ঘটে। বর্তমানে তারা গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসারত অবস্থায় রয়েছে।

মো. ফারুক হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থী। বর্তমানে তিনি অ্যানিমেল ব্রিডিং এন্ড জেনেটিক্স ডিপার্টিমেন্টে মাস্টার্সে অধ্যায়ন করছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাজমুল আহসান হলের আবাসিক ছাত্র।

জানা যায়, আজ ফারুকদের বাসায় ছাদ ঢালায়ের জন্যে কাজ চলছিল। এসময় পাশের বাসার তাজু, মাজু, নাজিত, রবিসহ তারা ৬ ভাই ফারুকের বাসায় আসে এবং অভিযোগ করে যে ফারুকের বাসার ছাদ তাদের বাসার উপর উঠে যাচ্ছে। এ নিয়ে কথা চলছিল তাদের মধ্যে। কিন্তু এক পর্যায়ে ৬ ভাই মিলে ফারুকের পরিবারের উপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। এতে আহত হয় ফারুক, তার মা এবং তার খালা। পরে তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ফারুকের মাথায় ৩ টা, তার মায়ের মাথায় ৫ টি এবং তার খালার মাথায় ৭ টি সেলাই দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে হামলায় আহত ফারুক হোসেন বলেন, সকালে বাড়ির ছাদ ঢালাইয়ের কাজ শুরু হলে নির্মাণাধীন অংশগুলো তারা ভেঙ্গে দেয়। এ সময় আমি প্রতিবাদ করলে হাতুড়ি দিয়ে আমার মাথায় আঘাত করে। অামি কিছুক্ষণের জন্য অচেতন হয়ে পড়ি। খানিক পরে জ্ঞান ফিরলে দেখি তারা আমার মা ও খালাকে নির্মমভাবে মারধর করছে। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় আমরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসি। এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানায় মামলা করা হয়েছে। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।