কমিটিহীন বশেমুরবিপ্রবি ছাত্রলীগের কার্যক্রমে জয়ের প্রশংসা, অবসান হতে পারে আট বছরের অপেক্ষার

  • 20 May
  • 07:34 AM

সুকান্ত সরকার, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি 20 May, 20

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশিরভাগ শিক্ষার্থী বর্তমানে পরিবারের সাথে সময় কাটালেও কিছুটা ব্যতিক্রম বিশ্ববিদ্যালয়টির ছাত্রলীগ কর্মীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের কোনো কমিটি না থাকলেও প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে তারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ছুটে বেড়াচ্ছেন মানুষের সহযোগিতার উদ্দেশ্যে। কেউ রোজা রেখে তীব্র রোদ উপেক্ষা করেই কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছেন, কেউ বিনামূল্যে সবজি বিক্রি করছেন আবার কেউবা দরিদ্র ব্যক্তিদের নিকট ইফতার পৌঁছে দিচ্ছেন।

শুধুমাত্র করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সময়টাতেই নয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অধিকার থেকে শুরু করে যেকোনো বিপদে সামনের সারিতে থাকেন এসকল ছাত্রলীগ কর্মীরা। এ বিষয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকা বশেমুরবিপ্রবির চার ছাত্রলীগ কর্মী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, শেখ তারেক, বাবুল শিকদার বাবু এবং ফাহাদ সার্জিল জানান "বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শুরু থেকেই আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে ছাত্রলীগের সকল কর্মসূচি পালন করে আসছি। কমিটি না থাকায় আমরা বিভিন্ন সময়ে সমস্যার মুখোমুখি হয়েছি, বহিষ্কার হয়েছি কিন্তু থেমে যাইনি। বিপদের সময়গুলোতে গোপালগঞ্জ ২ আসনের সাংসদ শেখ ফজলুল করিম সেলিম এবং তার কনিষ্ঠ পুত্র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম আমাদের আগলে রেখেছেন, সবসময় আমাদের পাশে থেকেছেন। আমরা প্রত্যাশা করি খুব শীঘ্রই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের কমিটি প্রদান করে আমাদেরকে সাংগঠনিকভাবে আরো শক্তিশালী করা হবে।"

এদিকে বশেমুরবিপ্রবি ছাত্রলীগ কর্মীদের কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করে ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, "ছাত্রলীগের প্রতিটি ইউনিটই মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে।" কমিটি সংক্রান্ত এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, "আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে করোনা পরিস্থিতি শেষে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে কমিটি দেয়ার। ছাত্রলীগের প্রতিটি ইউনিট সুন্দরভাবে কমিটির নেতৃত্বে কাজ করুক এটাই আমাদের একমাত্র চাওয়া।"

উল্লেখ্য, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বশেমুরবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের কর্মীরা সক্রিয় থাকলেও বিগত আট বছরেও এই ইউনিটটিতে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়নি।