নোয়াখালীতে করোনাকালীন মৎস্য চাষ বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন

  • 20 July
  • 01:11 PM

এস আহমেদ ফাহিম, নোবিপ্রবি প্রতিনিধি 20 July, 20

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য ও সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগের আয়োজনে করোনা সংকটে পুষ্টি ও খাদ্য চাহিদা পূরনে মৎস্য চাষের ভূমিকা বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০ জুলাই সোমবার নোয়াখালী জেলার বাংলাবাজারস্থ গ্রামে বিভিন্ন স্তরের মানুষদের নিয়ে উক্ত কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ এর আওতাধীন " ফুড বেসড ইনিশিয়েটিভ ফর ইম্প্রোভিং হাউজহোল্ড ফুড সিকিউরিটি, ইনকাম জেনারেশন এন্ড মিনিমাইজিং মালনিউট্রেশন"নামক উপ-প্রকল্পের অধীনে এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

উপ-প্রকল্পের প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বেলাল হোসেন কর্মশালায় "করোনা সংকটে কিভাবে পুষ্টি ও খাদ্য চাহিদা পূরনে মাছ চাষ কতটা লাভ জনক এ বিষয়ের উপর আলোচনা করেন এবং করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্য বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ দিক সমূহ নিয়ে আলোচনা করেছেন।

এছাড়া মাছ চাষের গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করেছেন নোবিপ্রবির মাস্টার্স এর শিক্ষার্থী আস-আদ উজ্জামান নুর। কর্মশালায় আরও উপস্থিত ছিলেন উপ-প্রকল্পের টেকনিক্যাল অফিসার নুর মোঃ সেলিম, রিসার্চ এসিস্ট্যান্ট মিলন সরকার।

প্রোজেক্ট এর উদ্দেশ্যের মধ্যে রয়েছে বসতবাড়ির পুকুরে মাছ চাষে উদ্বুদ্ধ করে চাষকৃত মাছ খাওয়ার মাধ্যমে প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করার মাধ্যমে পুষ্টিগত অবস্থার উন্নতি করা। মাছ চাষের মাধ্যমে বসতবাড়ির খামারিদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি ঘটানো এবং মাছ চাষে অভ্যস্ত করা। মাছ চাষে মহিলাদের সংযুক্ত করার মাধ্যমে সংসারের আয় বৃদ্ধি করা। মাছ চাষের পাশাপাশি পুকুরের পাড়ে শাঁক-সবজি চাষের মাধ্যমে অন্যান্য পুষ্টি চাহিদা পূরণ করা।

এছাড়া উক্ত কর্মশালায় করোনাকালে যেসকল জিনিসপত্র জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজন যেমনঃ মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ওষুধ, ছিভিট, জিংক ট্যাবলেট ইত্যাদি প্রদান করা হয়। করোনাকালে করণীয় সম্পর্কে বসতবাড়ির খামারিদের অবগত করা হয়।
পাশাপাশি করোনাকালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির যেসব খাবার খাওয়া উচিত তা সম্পর্কে বসতবাড়ির খামারিদের জানানো হয়।

পরবর্তীতে খামারিদের মাঝে লেবু গাছ বিতরণ করা হয় এবং বসতবাড়ির খামারিদের পুকুরে মাছ অবমুক্ত করা হয়।