নোবিপ্রবি ডিবেটিং সোসাইটির বিবৃতি, বাসা ভাড়া সংকট সমাধানের দাবী

  • 13 June
  • 10:32 AM

এস আহমেদ ফাহিম, নোবিপ্রবি প্রতিনিধি 13 June, 20

করোনার প্রাদুর্ভাবে নোবিপ্রবির অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের বাসা ভাড়া নিয়ে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের দাবী জানিয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি।

শনিবার (১৩ জুন) সংগঠনটির সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম সৌরভ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবী জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ তথা করোনা ভাইরাস অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও আঘাত হানে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গত ১৭ মার্চ থেকে দফায় দফায় সারা দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে। ফলে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় নোবিপ্রবির শিক্ষার্থীরাও নোয়াখালী শহর ছেড়ে পরিবারের সাথে অবস্থান গ্রহণ করে। আমরা সবাই জানি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সমগ্র বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের অর্থনীতি ও ভেঙ্গে পড়েছে। অনেক পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তিটিও হারিয়েছেন উপার্জনের অবলম্বনটি। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী টিউশনের টাকা দিয়ে বাসা ভাড়া কিংবা মেস ভাড়ার টাকা পরিশোধ করে থাকেন। বহুদিন নিজের পরিবারের সাথে অবস্থান করার কারণে অর্থ উপার্জনের এই পথটি তারা ইতিমধ্যেই হারিয়েছেন। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও চরম অর্থিক সঙ্কটে থাকা শিক্ষার্থীরা বাসা ভাড়া পরিশোধ করতে পারছে না। অন্যদিকে যথাসময়ে বাসা ভাড়া না পাওয়ায় মালিকপক্ষের একটি অংশ থেকে ক্রমান্বয়ে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে এমনকি বিভিন্ন হুমকিও প্রদান করা হচ্ছে।

এমতাবস্থায় অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের প্রয়োজন আর্থিক সহায়তা। এ ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং নোয়াখালী জেলা প্রশাসন যুগ্মভাবে মধ্যাস্থতার ভূমিকা পালন করতে পারে। যেহেতু ছাত্রছাত্রীরা করোনার সঙ্কটকালীন সময়ে বাসায়/মেসে অবস্থান করেনি, সেহেতু স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় বাসার সার্বিক ব্যয় হ্রাস পেয়েছে। এই দিকটি বিবেচনাধীন করলে মালিক পক্ষ থেকে বাসা ভাড়া হ্রাস করণ শিক্ষার্থীদের ন্যায্য দাবী। এছাড়া বিভিন্ন মানবিক দিক বিবেচনা করে মালিক পক্ষ হতে বাসা ভাড়ার নির্দিষ্ট পরিমাণ অংশ মওকূফ করার বিষয়টি হতে পারে মানুষের পাশে মানুষের দাঁড়ানোর একটি চমৎকার মানবিক উদাহরণ। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যলয় প্রশাসন করোনা সঙ্কটে বন্ধ থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুসাঙ্গিক খরচের অর্থ নির্দিষ্ট হারে করোনায় অর্থনৈতিক সঙ্কটে পড়া শিক্ষার্থীদের বাসার ভাড়া প্রদানে ব্যয় করতে পারে। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন মহলের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে বিভিন্ন পরিষেবার বিল মওকুফ সহ যেসব বাড়িওয়ালা ব্যাংক লোনের মাধ্যমে বাড়ি নির্মাণ করেছেন তাদের লোন আদায় স্থগিত রাখার চেষ্টা করে উদ্ভুত সমস্যার প্রশমন করা যেতে পারে।

পরিশেষে নোবিপ্রবি ডিবেটিং সোসাইটি মানবিক দিক বিবেচনা করে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াচ্ছে। বাসা/মেস মালিক-শিক্ষার্থীদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব নিরসনে তড়িৎ পদক্ষেপ নেয়ার সাথে সাথে আমাদের মানবিক দিকটাও ভেবে দেখতে হবে। অনেক বাসা/মেস মালিকের উপার্জনের উপায় যেমন এই বাসা/ মেস ভাড়া তেমনি অনেক শিক্ষার্থীর মাথাব্যথার কারণও এই বাসা/ মেস ভাড়া। তাই উভয়পক্ষের সমঝোতা এবং স্থানীয় প্রশাসন ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আলোচনার মাধ্যমে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে বাসা/ মেসমালিক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে সৃষ্ট এই সমস্যার সুন্দর সমাধান হবে বলে নোবিপ্রবি ডিবেটিং সোসাইটি বিশ্বাস করে।