নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

  • 16 Aug
  • 09:08 AM

এনএসইউ প্রতিনিধি 16 Aug, 21

বাংলাদেশর বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষাগ্রহণ শেষে অনেকেই দেশের বাইরে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ইচ্ছা পোষণ করে থাকেন। ভিনদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের দামী ডিগ্রী কিংবা শিক্ষাজীবন শেষে ইউরোপ, আমেরিকা কিংবা কানাডার মতন দেশে স্থায়ীভাবে নিজের কর্মসংস্থান বানাতে চান এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও সঠিক তথ্য, গাইডলাইন কিংবা স্কলারশীপের অভাবে এমন অনেক মেধাবী ও সম্ভাবনাময়ী শিক্ষার্থীর বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের স্বপ্ন থেকে যাচ্ছে অধরা।

আর তাই নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিমার্টমেন্ট অফ ইংলিশ এন্ড মডার্ণ ল্যাঙ্গুয়েজেস কর্তৃক ১২ আগস্ট ' বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে স্কলারশীপ এবং চাকরি' বিষয়ক একটা অনলাইন ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ওয়েবিনারের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ শাহিনূর আলম জনি এবং সঞ্চালনায় ছিলেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের লেকচারার মেহেদী হাসান। প্রধান অতিথি শাহিনূর আলম জনি প্রথমেই বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা কি কি ধরনের বাধার সম্মুখীন হতে পারে সেসব নিয়ে আলোচনা করেন। পরবর্তীতে বাধা অতিক্রমের ক্ষেত্রে কি কি করণীয় সেগুলো নিয়ে একে একে বিস্তারিত বর্ণণা করেন এবং কিভাবে শিক্ষার্থীরা স্কলারশীপ নিয়ে বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিশ্চিত করতে পারে সে বিষয়গুলো তুলে ধরেন। তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের স্কিল ডেভেলপমেন্টের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। কেননা তিনি বলেন, অনেক সময় প্রাতিষ্ঠানিক ফলাফল একটু তুলনামূলক কম কিংবা খারাপ থাকলেও সিভিতে উপস্থাপিত বিশেষ কোন কার্যক্রম, নিজস্ব কর্মদক্ষতা, সহশিক্ষামূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ প্রাথীর গ্রহণযোগ্যতা অনেকাংশে বাড়িয়ে দিতে পারে। এমনকি অনেক সময় সঠিক উপায়ে তথ্য উপস্থাপন অপেক্ষা গ্রহণযোগ্য কিছু তথ্যই প্রোফাইলে অতিরিক্ত মাত্রা এনে দিতে পারে।

দ্বিতীয় পর্বে শিক্ষার্থীদের করা বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে স্কলারশীপ ও চাকরি পাওয়ার পাচটি মানদণ্ড উল্লেখ করে বলেন, প্রথমত মাধ্যমিকে ভালো ফলাফল, ভালো এস ও পি, রেফারেন্স, আই এল টি এস পরীক্ষায় একটা ভালো স্কোর এবং সঠিক তথ্য সম্বলিত একটি প্রোফাইল শিক্ষার্থীদের বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের পথ সুগম করতে পারে। তবে তিনি এও বলেন দেশের বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্রেডিট ট্রান্সফারে তাড়াহুড়ো না করে বরং একাডেমি পড়াশুনা এবং স্কিল ডেভেলপমেন্টের দিকে নজর দিয়ে, স্নাতক কিংবা স্নাতকোত্তর শেষেই তিনি বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের পরামর্শ দেন। তিনিও ইংরেজি সাহিত্য স্নাতক শেষ করা এক শিক্ষার্থীর প্রশ্নের উত্তরে তিনি তার স্নাতকের বিষয় ব্যতীত অন্য নতুন বিষয় নিয়ে স্নাতকোত্তর শেষ করার পরামর্শ দেন। যা তার দক্ষতা বৃদ্ধি এবং উচ্চশিক্ষায় স্কলারশীপ নিশ্চিতে অনেকটাই এগিয়ে রাখবে। তার এসব মূল্যবান পরামর্শ শিক্ষার্থীদের দেশের বাইরে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেবার বিষয়ে অনেকটাই সহায়ক ভূমিকা রাখবে। এছাড়াও তিনি আই এল টি এস, জি আর ই পরীক্ষা, শিক্ষার্থীদের বসবাস উপযোগিতার ভিত্তিতে দেশ নির্বাচন, বিশ্বের সেরা সব বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা এবং শিক্ষার্থীর প্রোফাইলে সংযুক্ত আবশ্যক কিছু বিষয় সহ প্রাসঙ্গিক সব তথ্য উপস্থাপন করেন।

সর্বোপরি তিনি বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের উজ্জল ভবিষ্যৎ কামনা করে তার মূল্যবান বক্তব্যের সমাপ্তি করেন।