একজন তরুণ এবং ইন্সপিরেশন

  • 29 Apr
  • 09:53 AM

ভার্সিটি ভয়েস ডেস্ক 29 Apr, 20

গল্পটা শুরু হয় ২০১৭ সালের ২৩ জুলাই।
ঢাকা এবং প্রসিদ্ধ বিভাগগুলিতে তখন ওয়ার্কশপ আর সেমিনারের এক ব্যাপক বিস্তার শুরু হয়েছে।
বিশেষ করে ইয়ুথ জেনারেশনের স্কিল ডেভেলপমেন্ট করানোর উদ্দেশ্যই ছিল এই নতুন কনসেপ্টের এজেন্ডা।

ঠিক একই ধারায়,কয়েকজন ইয়ুথ এক্টিভিষ্ট নিয়ে শুরু হয় স্কুল অব ইন্সপিরেশনের যাত্রা কিন্তু উদ্দেশ্যটা ছিল একটু ভিন্ন।
শহরে এমন অনেক স্কুল এবং কলেজ আছে যেখানের অনেক শিক্ষার্থীরাই একাডেমিক শিক্ষার বাহিরে স্কিল ডেভেলপমেন্ট করার জন্য সহজেই কোন গাইডলাইন পায় না৷ সেই সকল শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে স্কিল ডেভেলপমেন্ট ট্রেনিং দেওয়া সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গ্রুমিং করিয়ে তাদের দ্বারা অন্যদের অনুপ্রাণিত করাই স্কুল অব ইন্সপিরেশনের প্রধান এজেন্ডা।

বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানটির সাথে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে যুক্ত আছে প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী। তাদের একাডেমি শিক্ষার বাহিরে বাস্তবমুখী শিক্ষা প্রদান সহ বিভিন্ন ইন্টারেক্টিভ ওয়ার্কশপের মাধ্যমে চাকরি ক্ষেত্রের একজন দক্ষ কর্মী হিসেবে গড়ে তুলার জন্য প্রতিষ্ঠানটি কাজ করে যাচ্ছে তাদের নিয়ে।

প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এক্সপার্ট দ্বারা বিভিন্ন স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম আয়োজন করা হয়।
প্রতিষ্ঠানটির সাথে এবং শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করতে শুরু থেকে সাথে আছেন সাইদুর রহমান,টিম মেম্বার,প্যাডক্স জিন্স লিমিটেড,আরিফ জামান,ডিরেক্টর,একাডেমিক অ্যাফেয়ার্স,কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ সহ আরও অনেকেই।

ভাসমান এই স্বপ্নের আজ বর্তমান ঠিকানা ঢাকার কল্যানপুরে। যেখানে এই তিন শতাধিক শিক্ষার্থীকে আত্মনির্ভরশীল করার জন্য কাজ করছে ভিন্ন ভিন্ন চারটি টিম।
এছাড়া প্রোগ্রাম কোর্ডিনেটর হিসেবে তাসফিয়া বিনতে ফারুক এবং পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে সুমাইয়া বিনতে এরশাদ প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। এদের সবাইকে গাইডলাইন দিয়ে যাচ্ছে উক্ত প্রতিষ্ঠানটির সিআইও।

প্রতিষ্ঠানটির চিফ ইন্সপিরেশনাল অফিসার তার বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন,"আমাদের অগ্রযাত্রার আজ প্রায় ৩ বছর। অনেক বাধা পেড়িয়ে আমরা আজ এইখানে। আমাদের অরগানাইজেশটি একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান যেখানে শহর এবং উপশহরের প্রত্যেকটি শিক্ষিত ইয়ুথকে চাকরি/ব্যাবসা ক্ষেত্রের দক্ষ কর্মী হিসেবে গড়ে তুলার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি,যাতে ভবিষ্যৎ সময়ে দক্ষ কর্মীর অভাব না হয় এবং কারও যাতে বেকার শব্দটির বুঝা উঠাতে হয়।
এই এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্য আমরা অনলাইন এবং অফলাইন বিভিন্ন স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের মাধ্যমে ইয়ুথ কমিউনিটিকে অনুপ্রেরণা এবং গাইডলাইন দিচ্ছি। "

এছাড়াও তার থেকে জানা যায়,তিনি একটি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি বিভাগের অধ্যায়ন ছাড়াও অরগানাইজেশান সাইকোলজি,লিডারশীপ ডেভেলপমেন্ট,প্রোজেক্ট প্ল্যানিং এন্ড ম্যানেজমেন্ট এবং অন্ট্রাপ্রনারশীপ এন্ড কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা করেছেন।
তার এই প্রাতিষ্ঠানিক এবং ব্যবহারিক দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন শতাধিক তরুনদের জন্য।

ভার্সিটি ভয়েস টিম সর্বদাই এমন তরুণ এবং তাদের অভাবনীয় পদক্ষেপ গুলিকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানায়। একই সাথে তাদের এই উদ্ভাবনীয় গল্প গুলিকে সবার সামনে তুলে ধরে তাদের পাশে থাকতে গর্ববোধ করে।
আমাদের হাত ধরেই আসুক এই দেশের পরিবর্তন।
ভার্সিটি ভয়েস টিম থেকে রইল শুভকামনা।