‘খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে’-উপাচার্য

  • 22 Oct
  • 06:22 PM

আতিকুর রহমান, বাকৃবি প্রতিনিধি 22 Oct, 21

বাংলাদেশে মৎস সম্পদের নতুন নতুন উদ্ভাবন ও দেশব্যাপী এত সূদুরপ্রসারী বিস্তার লাভ করার পেছনে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনিস্টিউটের (বিএফআরআই) অবদান অনস্বীকার্য। বাংলাদেশে মৎস্য সম্পদ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ। নতুন নতুন প্রযুক্তি ও গবেষণায় দেশের বিলুপ্তপ্রায় মৎস্য সম্পদ আজ সংরক্ষিত। এই গবেষণা প্রকল্প আরো বৃদ্ধি করতে হবে। সুষম খাদ্যের নিরাপত্তা ও নিরাপদতা নিশ্চিতকরণে এইসব গবেষণা প্রকল্প একটি কার্যকরি ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করছি।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনিস্টিউট (বিএফআরআই) কর্তৃক আয়োজিত বার্ষিক গবেষণা পরিকল্পনা প্রণয়ন ২০২১-২২ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) সকাল ৯ টার দিকে বিএফআরআই এর সম্মেলন কক্ষে এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়।

তিনি আরো বলেন, অধিক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী ইলিশের জন্য এ দেশে অভয়ারন্য বানাতে হবে। মাছের সাথে সাথে অন্যান্য মৎস্য সম্পদও কিভাবে বিশ্বমানের তৈরী করা যায় সে বিষয়ে আমাদের ভাবতে হবে। মৎস্য সম্পদের অনন্য সম্ভাবনার খাত ব্লু ইকোনমির দিকেও আমাদের বিশেষ দৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন। খাবারের পরিমাণ থেকে তার মানের উপর লক্ষ রাখার জন্য তিনি গবেষকদের আহ্বান জানান।

দুই দিনব্যাপী এই কর্মশালায় ৬৫ টি গবেষণা প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে। এর মধ্যে প্রস্তাবিত প্রকল্প ৫৭ টি এবং বহিঃসংস্থা হতে প্রাপ্ত প্রকল্প ৮ টি। উক্ত গবেষণা প্রকল্পগুলোর মধ্যে ৩৯ টি প্রকল্প চলমান রয়েছে এবং ২৬ টি নতুন প্রকল্প রয়েছে। কর্মশালার মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএফআরআই এর মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহসেনা বেগম।

আয়োজিত কর্মশালাটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবি মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো মাহফুজুল হক, মৎস্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক খঃ মাহবুবুল হক। সভাপতিত্ব করেন বিএলআরআই এর মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ ও কর্মশালার প্রশিক্ষণার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।