‘আইনের চোখ কালো কাপড়ে বাঁধা’

  • 25 Sept
  • 05:09 PM

মনীষ বিশ্বাস 25 Sept, 21

প্রচলিত একটা কথা হইলো গিয়া -"আইনের চোখ কালো কাপড়ে বাধা"। এইড্যা প্রাই আমরা কোম -বেশি শুইন্যা থাকি বিভিন্ন মুভির ডায়ালগে কিংবা মামলার শুনানি নিশ্চিতের সোমায়। এখন কথা হইলো, "কালো কাপড়ে বাধা " প্রবাদসম বাইক্যটি আইলো কোথা থেকে আর কথাটা দ্বারা বুঝাই ই বা কি?

প্রথমে আসি, কথাডা আইলো কোত্থেকে।।

এইড্যা জানতে হইলে আমাদের একটু পিছনের দিক যাতি হইবে। গ্রিক মাইথোলজিতে ন্যায় -নীতির এবং আইন প্রবর্তনের দেবী হইলেন থেমিস। যিনি আবারা টাইটান দেব-দেবীর মধ্যে অন্যতম। গ্রিকরা আনুমানিক ৮ম খ্রীস্টপূর্বে এ দেবীর ভাস্কর্যের স্থাপনা করে।(তবে তাঁর পূজা করা হতো না)

রোমানরা এ্যামনে খ্রিস্টীয় ১ম শতকে এইরম ন্যায়বিচারের দেবীর নাম দ্যান দেবী জাস্টিসিয়া। যাঁর এ্যাক হাতে তরবারি অন্য হাতে দাঁড়িপাল্লা( প্রথমে তার চোখ খোলা ছিলো। কালক্রমে জুডিশিয়াল আইডোলোজিতে ভাস্কর্যে কিছুটা মডিফাইড করা হয়) পরে চোখের উপর কালা কাপোড় পড়ানি হয়।

ইউরোপের রেনেসাঁসের সোমায় গ্রেকো- রোমান সংস্কৃতি প্রভাব ফ্যালে(১৬ -১৭ শতকে)।এ্যাবং জুডিশিয়াল প্রোপাগান্ডায় দেবী জাস্টিসিয়ার ভাস্কর্য সমাদৃত হইছিলো। আর ব্রিটিশরা ভারতীয় উপমহাদেশে শাসন করিছিলো। ফলে দেখা গেইলো তাদের বিভিন্ন সংস্কৃতির সাথে কমন ল এই উপমহাদ্যাশে গ্রহন করা হইলো। আর সেই ভাবধারায় আমাগো দ্যাশে দেবী জাস্টিসিয়ার মূর্তি ছিলো ( সুপ্রিম কোর্টে, বর্তমানে স্হান পরিবর্তন ), যেহেতু আমরা কমন ল কান্ট্রিগুলোর মোদ্যি পড়ি।

"কালো কাপড়ে বাধা " কথাডার অর্থ হইলো - আইনের চোখ অনধো বা সোমান বা পক্ষপাতহীন। অনধো লোকের চোখ সোবাইকে সোমান দ্যাখে। যার দুইড্যা চোখই সোমান অর্থাৎ যার দুইড্যা চোখই নষ্ট সেই অনধো ( একটা ভালো একটা মন্দো নয়)।যার চোখ দুইড্যা পক্ষপাতহীন। কাউরে কোম- বেশি দ্যাখে না, অনধো লোক সবাইকে সমান দ্যাখে। কিংবা এভাবেও কওয়া যায় যে, দুইড্যা চোখ যদি দুই পক্ষ হয় তাইলে পক্ষ দুইড্যা সোমান। কারোন দুইড্যা চোখই একইরম।
তার মানে হইলো আইনের চোখে ধোনী -গোরীব, উঁচু -নীচু, জাত - পাত সব সোমান। সবার অাইনের আশ্রয় লাভ ও ন্যায় বিচারের ওধিকার আছে।

দেবী থেমিসের হাতের দাঁড়িপাল্লা ন্যায়বিচার আর সমোতার প্রতীক এ্যাবং তরবারীটি আইনের সুশাসন নিশ্চিত করে।

-
মনীষ বিশ্বাস
শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।