• 28 Nov
  • 12:15 AM
ফ্রিল্যান্সিংয়ে দেশসেরা শাবিপ্রবির আমিনুর, মাসে আয় সোয়া ৪ লাখ টাকা!

দেলোয়ার হোসেন,শাবি প্রতিনিধি 28 Nov, 19

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করেছেন আমিনুর রহমান। ২০০২-০৩ সেশনে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা শেষ করেন ২০০৯ সালে। একবছরের মাথায় তিনি ওডেস্কে (বর্তমান নাম আওয়ার্ক) একাউন্ট খোলেন। যাতে তিনি এখন দেশসেরা ফ্রিল্যান্সার হয়েছেন। এতে পেয়েছেন ‘বেস্ট ফ্রিল্যান্সার ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড-২০১৯’। 



বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয়বর্ষে পড়ার সময় থেকেই প্রথম আলোর কম্পিউটার প্রতিদিন বিভাগে লেখালেখি শুরু করেন, চলছে এখনো। তৃতীয়বর্ষে পড়ার সময় ডাক্তারদের জন্য তৈরি করেন ডক্টর প্রেসক্রিপশন নামের একটি সফ্টওয়্যার। সেটি নিয়ে ১৮-০৭-২০০৮ তারিখ প্রথম আলোর প্রজন্ম ডটকমে এবং ২১-০৭-২০০৮ তারিখ দৈনিক ইনকিলাবে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। দেশের অনেক ডাক্তার এখনো এই সফ্টওয়্যারটি ব্যবহার করছেন। চতুর্থবর্ষে পড়ার সময় তৈরি করেন এসএমএসে টিকেট কাটার সফ্টওয়্যার। ২৩-১০-২০০৯ তারিখ প্রথম আলোর প্রজন্ম ডটকমে সেটি নিয়েও প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তার মাস ছয়েক পর মোবাইল কোম্পানিগুলো এই ধরনের একটি সফ্টওয়্যার তৈরি করে ট্রেনের টিকেট কাটার জন্য ব্যবহার করেন। অনেকটা শখের বসেই লেখালেখি শুরু করেন তিনি। বর্তমানে পেশায় তিনি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ও ফ্রিল্যান্সার। ভালোবাসেন বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করতে, সমরেশ মজুমদার এবং সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের বই পড়তে, সিনেমা দেখতে, আনিসুল হকের লেখা নাটক দেখতে এবং মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা কলাম পড়তে। বর্তমানে আমিনুএএর লেখা বই ০৮ টি। এবং ২০২০ এর একুশে বইমেলায় আসছে তার নবম বই "দ্যা ফ্রি লান্সার অফ আউটসোর্সিং", অথবা " লেগে থাকলে সফলতা আসবেই" এবারে আমিনুরের বাস্তব জীবনে আসি, দেশে বেকারের সংখ্যা যেখানে প্রতিনিয়ত বাড়ছে সেখানে নিজের উদ্যোগ ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে আমিনুরের মাসিক আয় প্রায় ৫ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় সোয়া ৪ লাখ টাকা। জানা যায়, আমিনুর রহমানের বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার নয়াপাড়ায়। তিনি ছিলেন ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপার। সি শার্প (C#) ল্যাংগুয়েজ দিয়ে ডক্টর প্রেসক্রিপশন, এসএমএসে টিকিট কাটার সফটওয়্যার ইত্যাদি তৈরি করেন। ওডেস্কে কাজ করার জন্য ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন থেকে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। কারণ, তিনি দেখেন, ওডেস্কে ওয়েবসাইটের কাজ বেশি। পরে ওয়ার্ডপ্রেস শেখেন। এরপর থেকে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওডেস্কে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করছেন। তিনি ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে বেশ কয়েকটি বইও লিখেছেন। শুরুতে তিনি ঘণ্টায় এক ডলার রেটে কাজ শুরু করলেও এখন তিনি ঘণ্টায় ৫০ ডলার রেটে কাজ করেন। বর্তমানে তার আয় মাসে প্রায় সোয়া ৪ লাখ টাকা। আমিনুর বলেন, আগে মার্কেটপ্লেসগুলোয় প্রতিযোগিতা অনেক কম ছিল। তাই মোটামুটি মানের কাজ শিখেই মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করা যেত। কিন্তু এখন প্রতিযোগিতা অনেক বেশি। দক্ষ হয়েই কাজ শুরু করতে হয়। স্কিল ডেভেলপের জন্য ইউটিউবের কোনো বিকল্প নেই।



অনেকে দেখা যায় ফ্রিল্যান্সিংকে পার্টটাইম হিসেবে নেয় বা নিতে চায়। এখন অনেক প্রতিযোগী বলে সে সুযোগ কম। বিশ্বে সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন কাজের মার্কেটপ্লেস আপওয়ার্কে এখন আর বাংলাদেশ থেকে সহজে অ্যাকাউন্ট খুলতে দিচ্ছে না। অ্যাকাউন্ট খোলা যায় কিন্তু অ্যাকাউন্ট খোলার পর প্রোফাইল সাবমিট করতে হয় রিভিউয়ের জন্য। আপওয়ার্ক প্রোফাইল রিভিউ করে অনুমোদন দিলে তারপর থেকে জবে আবেদন করা যায়। জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে অ্যাকাউন্ট খুলে রিভিউয়ের জন্য প্রোফাইল সাবমিট করলে এখন আপওয়ার্কে আর সহজে অনুমোদন দেয় না। একবার বলে, এই ক্যাটাগরিতে ফ্রিল্যান্সার বেশি হয়ে গেছে। নতুন ফ্রিল্যান্সার আপাতত আর লাগবে না। আবার বলে, প্রোফাইল ভালোভাবে তৈরি করা হয়নি। এভাবে ইত্যাদি বিভিন্ন অজুহাতে তা বাতিল করে দেওয়া হয়। তবে এটাও ঠিক, বাংলাদেশিরা মিস ইউজও কম করে না। এখন আপওয়ার্ক আবার নতুন করে পেইড কানেক্ট সিস্টেম চালু করেছে। অর্থাৎ, আগে জবে আবেদন করতে ফ্রিল্যান্সারদের কোনো পে করতে হতো না। ফ্রিল্যান্সাররা প্রতি মাসে ৩০টি জবে বিনা মূল্যে আবেদন করতে পারত। কিন্তু এখন থেকে ফ্রিল্যান্সাররা আর বিনা মূল্যে জবে আবেদন করতে পারবে না। একটি জবে আবেদন করতে কমপক্ষে শূন্য দশমিক ১৫ ডলার খরচ হবে। আমিনুর মনে করেন, নতুন ফ্রিল্যান্সাররা এখন ফাইবার, পিপল-পার-আওয়ার, গুরু ইত্যাদি মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট খুলে কাজ করতে পারে। আর এখন যেহেতু কমপিটিশনের যুগ, তাই দিন দিন কমপিটিশন বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। কমপিটিশনের বাজারে টিকে থাকতে হলে নিজেকে সব সময় আপডেট রাখতে হবে। অনেকেই বলেন, কাজ করতে গেলে অ্যাকাউন্ট বন্ধ (সাসপেন্ড) হয়ে যায়। কিন্তু মার্কেটপ্লেসের নিয়মকানুন মেনে চললে অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড হয় না। অনেকে দেখা যায় নিয়মকানুন না জেনেই কাজ শুরু করে দিতে। পরে যখন কোনো নিয়মভঙ্গ হয়, তখন অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করে দেয়। তাই আগে মার্কেটপ্লেসের সব নিয়মকানুন জেনে তারপর কাজ শুরু করা উচিত। মার্কেটপ্লেসসংক্রান্ত কোনো সমস্যায় পড়লে তাদের কাস্টমার সাপোর্টে কথা বলুন। স্কিল রিলেটেড বা অন্য কোনো সমস্যায় পড়লে গুগল/ইউটিউবে সার্চ করুন। একজন এক্সপার্ট ফ্রিল্যান্সার আর একজন নতুন ফ্রিল্যান্সারের মধ্যে পার্থক্য হলো এক্সপার্ট ফ্রিল্যান্সার যখন কোনো সমস্যা পড়ে, তখনই গুগল/ইউটিউবে সার্চ করে। আপনাকে এ বিষয়ে দক্ষ হতে হবে বলে মনে করেন আমিনুর। নিজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে আমিনুর বলেন, সাস্টের শিক্ষার্থীরা বর্তমানে বিশ্বের অনেক উন্নত প্রতিষ্ঠানে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। নির্ধারিত চাকুরীর আশায় বসে না থেকে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে হাতের কাজ শিখে নিজের ক্যারিয়ার গঠন করা উচিৎ।