• 22 Aug
  • 10:24 PM
দশটি কবিতা।। আল-আমীন আপেল

নিজস্ব প্রতিনিধি 22 Aug, 19

'ব্যস্ততা'

জীবনে যান্ত্রিক ব্যস্ততা,
আবেগেরা শপ্তপ্রায়,
মাতাল করে না কেন
সুখি সময়ের গন্ধ?


''বাঁচা''

শাদার শ্বাসে কালো,
কালোর প্রশ্বাসে শাদা;
এর মাঝে বাঁচা,
দুঃখ খুঁজি সদা।


''প্রপোজ''

সুপ্রভা, আমি না হয় হলুদরঙা হবো!
লালপাড়ের শাদা শাড়ী,
ঠোঁটে ছুঁয়ে লাল লিপিস্টিক;
কপালে কালো টিপ পড়ে,
একরাশ ঘাসফুল নিয়ে
এসে বোলো--
'ভালবাসি, ভালবাসি..প্রিয়'



"অন্ধকার"

রাতের শহুরে দুর্বাঘাসে,
কামরাঙার মতন তারারা ভর করে;
হুতুমপেঁচার চোখ যেনো
ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বর বাড়ির দোরে।

সুবহে সাদিক হয়ে আসে,
কাকের স্বরে গাঢ় আর্তনাদ:
ওরে.. কে কোথায় আছিস?
ওরা বঙ্গবন্ধুকে কেড়ে নিয়েছে!

''আমি''

এমন সর্বনাশা চোখে কেউ তাকায় না,
আমি-ই তাকাই!
জলকে কেউ ভেজা না;
আমি-ই ভেজাই।


"বক্ররেখার জন্মকথা"

মানুষ একটা সরলরৈখিক জীবনের পথ নিয়েই জন্মায়।
কিন্তু.. একটা সময়ে গিয়ে ঠিক প্যাঁচিয়ে যায় সে পথ;
হেডফোনের তারের মতোন বড্ড বেখেয়ালি পথ!
সরলরৈখিক জীবনপথ বক্ররেখা হয়ে জ্যামিতি বইয়ে খোঁজে সুখ।


"সত্য-মিথ্যের সম্পর্ক"

রোদচশমার আড়ালে কত মিথ্যেকে লুকিয়ে যেতে দেখেছি,
অল্পেই ফ্যাকাশে হয়ে যায় মিথ্যের শরীর;
সত্যের সাথে কতখানি মিথ্যে মেশালে খাঁটি হয়,
পুষ্ট হয় মিথ্যের শরীর, আমি তা জানি না!


"বাঁচো"

চোরা মনোবেদনাকে জিতিয়ে দিতে
সুইসাইড করতে যেও না, বাঁচো;
অপেক্ষা করো, দেখো;
বেদনারা একদিন, ঠিক মরে যাবে।


"বৈমানিক প্রেম-স্বপ্ন''

কত শত বৈমানিক প্রেম-স্বপ্নরা রোজ হৃদঘরের দরজায়
সজোরে কড়া নাড়ে !
বর্ষীয়ান শূন্যতার মুখে বিশ্রী চুনকালি আঁকতে চায়
ক্ষণস্থায়ী, সর্বনাশী পূর্ণতা!
নাহ! ওদের দেই নি তো কভূ সাড়া।


"সময়ের খেল"

বছর পুরনো হলে দেয়ালে ওঠে নতুন ক্যালেন্ডার,
আজকের পড়ন্ত বিকেলটা আগামীকাল
হয়ে যাবে 'গতকাল বিকেল'।
সব ক্ষমতা তো বাপু সময়ের হাতে!