• 26 Nov
  • 09:46 AM
জলাবদ্ধতা রোধে শিগগিরই তিতুমীর কলেজের ড্রেনেজ সংস্কার: অধ্যক্ষ

আরাফাত হোসেন, জিটিসি প্রতিনিধি 26 Nov, 19

বর্ষা মৌসুমে ভারী বর্ষণ কিংবা সামান্য বৃষ্টিপাতে ঢাকায় জলাবদ্ধতা নতুন কোনো ঘটনা নয়। আপাত দৃষ্টিতে শহরের অলিতে-গলিতে এমন জায়গা খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে সামান্য বর্ষণে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়না। সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গেছে কেউ কেউ রাজধানীর সড়ক পথকে নদীর সাথে তুলনা করে ট্রোল ভিডিও তৈরি করছেন! পাকা রাস্তায়ও দেখা মিলেছে লগি বৈঠা আর কাঠের নৌকার!

জলাবদ্ধতা শুধু যে সড়ক জুড়েই তা নয়। দেশের স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতেও দেখা মেলে এর প্রভাব। জলাবদ্ধতার এই চরম দশা থেকে রেহাই পায়নি রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজও। সামান্য বৃষ্টিতেই সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতার। আর দুর্ভোগ বাড়ে শিক্ষার্থীদের। বর্ষা কিংবা সামান্য বৃষ্টি মানেই কলেজ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের কাছে জলাবদ্ধতার এক তিক্ত অভিজ্ঞতা!

এই জলাবদ্ধতার কারণে সাধারণ পথচারী থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীদেরও ভীষণ ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়। কলেজের প্রধান ফটকের সামনে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় ভোগান্তিতে পড়েন শিক্ষার্থীরা। তিতুমীর কলেজের মাঠ এবং মেইন ফটকের সামনের জলাবদ্ধতার বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ উদাসীন বলে দাবি ছাত্রদের।

ভারী বর্ষণে তিতুমীর কলেজের মাঠকে প্রথম দেখাতেই ছোট পরিসরে মাছ চাষের পুকুর মনে হতেই পারে। কারণ মুহূর্তের মধ্যে হাঁটু পানি জমে যাওয়া এখানের অন্যতম নিদর্শন! এছাড়াও বৃষ্টিতে ক্যাম্পাসের মূল ফটকের পাশে বসার স্থানগুলো বৃষ্টির পানিতে ডুবে থাকে। তিতুমীর কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আশরাফ হোসেন শোনালেন আশার বানী। সরকারি তিতুমীর কলেজের সাংবাদিক সমিতির সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে অধ্যক্ষ জানান, 'কলেজের কলাভবন থেকে শুরু করে বিজ্ঞান ভবন এবং মেইন গেট সংলগ্ন রাস্তাগুলোতে যে জলাবদ্ধতা দেখা দেয় খুব শিগগিরই সেটির পরিবর্তন হবে।'

এসময় তিনি আরো বলেন, 'বর্ষা মৌসুমের আগের পুরো সময়টা জুড়ে আবর্জনায় ভরাট হয়ে যাওয়া বিভিন্ন জায়গা, ড্রেনেজ লাইন পরিষ্কার করা হবে। যার ফলে বর্ষাকালীন সময়ে ভারি বৃষ্টিতেও কোনো পানি জমে থাকার সম্ভাবনা থাকবে না।'