• 03 Sept
  • 06:12 PM
শততম রজনীতে ‘বীরাঙ্গনার বয়ান’

আদনান মেহমুদ সম্রাট 03 Sept, 19

‘মিলিটারি আর রাজাকারের নির্যাতনে কখন যে কবর খুঁড়া শুরু করলাম তা মনেই রাখতে পারি নাই। তারপর থাইকা কবর খুঁড়তেই আছি। মায়ের কবর, ভাইয়ের কবর, স্বজনের কবর। সবার কবরতো খুঁড়লাম, আমার কবর খুঁড়বো কেডা?' -এমনি অনেক মর্মস্পর্শী-হৃদশিহরিত সংলাপে আবৃত হয়েছে বর্তমান মঞ্চের আলোচিত নাটক ‘বীরাঙ্গনার বয়ান’। রওশন জান্নাত রুশনী রচিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এ আখ্যানটি নির্দেশনা দিয়েছেন দেবাশীষ ঘোষ।

দেখতে দেখতে শততম মঞ্চায়নকে ছুঁতে যাচ্ছে দেশের থিয়েটার অঙ্গনের অন্যতম সক্রিয় নাট্যসংগঠন শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্রের সাড়াজাগানো নাটক ‘বীরাঙ্গনার বয়ান’। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির স্টুডিও থিয়েটার হলে আগামী ৬ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে নাটকটির শততম প্রদর্শনী।
এ উপলক্ষে শততম মঞ্চায়নের পূর্বমুহূর্তে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন মঞ্চসারথি আতাউর রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ ও বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশানের সেক্রেটারি কামাল বায়েজিদ।

একাত্তরের পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোষররা বাংলাদেশের অসংখ্য নারীর উপর অমানবিক নির্যাতন চালিয়েছে। সেইসব নিষ্ঠুর নির্যাতনে লাঞ্ছিত ও স্বজনহারা নারীদের জীবনে সংঘটিত ভয়ানক অত্যাচারের কাহিনি নিয়েই রচিত হয়েছে এই নাটক। এতে একক অভিনয় করছেন রওশন জান্নাত রুশনী।

যশোর জেলার বীরাঙ্গনা বীরমাতা হালিমার জবানীতে উঠে এসেছে সেই নির্মম সত্য ঘটনা। হালিমা কোনো একক নাম নয়, সেদিনের নির্মমতার শিকার লাখ লাখ নারীর প্রতিচ্ছবি। নাটকের কাহিনি বিন্যাসের প্রয়োজনে হালিমার জবানীতে আরো কয়েকজন বীরমাতার কাহিনিকে একসূত্রে গেঁথে সেইসব বর্বরতার চিত্র বর্তমান প্রজন্মকে জানান দেয়ার নিরন্তর চেষ্টা করা হয়েছে ‘বীরাঙ্গনার বয়ান’ নাটকে।

হালিমার বয়ানের মধ্য দিয়ে দর্শকদের চোখের সামনে স্বাধীনতা যুদ্ধে নারীদের প্রতি নির্যাতন আর ভয়াবহ যন্ত্রণার করুণ আর্তনাদ তুলে ধরার প্রাণন্তর ব্যাকুলতা রয়েছে এই নাটকে। মূলত, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিকভাবে তুলে ধরার অনবদ্য প্রয়াসেই নির্মিত হয়েছে নাটকটি।

নাটকের আবহ সঙ্গীত করেছেন তন্ময় ব্যানার্জী ও ইনতিশা তাশদীদ তাহা। খোরশেদুল আলমের সেট পরিকল্পনায় নাটকটির আলোকায়ন করেছেন আব্দুল হাদী। এর আগে নাটকটির ৯৯ টি প্রদর্শনী হয়েছে। যার প্রায় অর্ধশত প্রদর্শনী হয়েছে ভারতের বিভিন্ন জেলায় এবং বাকি প্রদর্শনীগুলো অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশে।